খনিজ সম্পদের উপর বাংলাদেশ ভাসছে এ দেশ কখনো গরিব নয়, আমাদেরকে গরিব করে রাখা হয়েছে

খনিজ সম্পদের উপর বাংলাদেশ ভাসছে এ দেশ কখনো গরিব নয়, আমাদেরকে গরিব করে রাখা হয়েছে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু একথা ভেবেছিলেন অনেক আগেই। এদেশে কি না আছে? সবুজ বনানী পল্লবে ঘেরা নদী-নালা বেষ্টিত সোনার বাংলা।

বিস্তৃত সোনালী ফসলের মাঠ, পৃথিবীর সর্ববৃহৎ সমুদ্র সৈকত, আর বিশাল সুন্দরবন। যে সুন্দরবনে রয়েছে অসংখ্য মূল্যবান ঔষধি গাছ, লতা পল্লব, যা দ্বারা হতে পারে অনেক মূল্যবান মহৌষধ। নাতিশীতোষ্ণ এ দেশটিতে মাটির নিচে রয়েছে অসংখ্য

খনিজ সম্পদ। বর্তমান সরকারের উন্নয়নের আরেকটি দিক সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ, বহু বছর পরে আমরা সমুদ্র সীমা নির্ধারণের ফলে সমুদ্রসীমা অনেক বিস্তৃতি লাভ করেছে। অনেক জলসীমা আমাদের মানচিত্রের সাথে যোগ হয়েছে। এটা আমাদের বিশাল

সাফল্য, তাতে সন্দেহের অবকাশ নেই। এই জলসীমা মায়ানমারের সীমানা এলাকায়, এখানে রয়েছে অসংখ্য খনিজ সম্পদ। সমগ্র বাংলাদেশ জুড়ে রয়েছে অসংখ্য খনিজ সম্পদ। এরশাদ সরকারের সময় হরিপুরে বিশাল তেলের খনি পাওয়া গিয়েছিল জানিনা তার কি অবস্থা। বড়পুকুরিয়ায় কয়লার খনি, সেখান থেকে কয়লা

উঠছে, এসকল কয়লার খনি থেকে হীরক, গ্রানাইট এ ধরনের মূল্যবান ধাতব পদার্থ পাওয়া যেতে পারে। গ্যাসের খনির তো অভাব নেই, যেখানে সেখানে রয়েছে অসংখ্য গ্যাসের খনি। বিশেষ করে আমাদের সমুদ্রসীমায় অবশ্যই তেলের খনি পাওয়া যেতে পারে বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস। উল্লেখ্য ইসলাম ধর্ম আমাদের

নেয়ামত। আমাদের দেশ ধর্মনিরপেক্ষ হলেও এখানে শত করা ৯৫ ভাগ মুসলমান রয়েছে,তাই আমাদের উপরে আল্লাহ তাআলার অনেক রহমত রয়েছে। একটু পর্যালোচনা করলে দেখা যাবে যেখানে ইসলামের বাণী যে সকল দেশে সকল দেশেই কিন্তু রয়েছে অফুরন্ত খনিজ সম্পদ এটা অস্বীকার করার কোন উপায় নেই। যার জাজ্জ্বল্যমান প্রমাণ হলো আরবদেশগুলো। আরব দেশগুলোর প্রায় সকল দেশেই আল্লাহতালা মাটির নিচে রেখেছে খনিজ

সম্পদ তেলের খনি, সোনার খনি, ইত্যাদি। আজ বিদেশিদের সাহায্য ছাড়াই ও বিশ্বব্যাংকের ঋণ ব্যতিরেকে নিজস্ব অর্থায়নে বিশাল প্রকল্প পদ্মা সেতু নির্মাণ করতে পেরেছি। সেইভাবে নিজস্ব অর্থায়নে এই সকল খনি থেকে তেল উত্তোলন মোটেই অসম্ভব নয় বলে মনে করি। বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল, বঙ্গবন্ধু কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার সরকার, উন্নয়নের সরকার,

তার প্রতি আমার আকুল আবেদন, অনুগ্রহ করে খনিজ সম্পদ উত্তোলনের জন্য পদ্মা সেতুর মতো আরেকটি সাহসিক উদ্যোগ নেওয়ার জন্য আকুল আবেদন জানাই।
সকল মিডিয়া বন্ধুদের প্রতি আমার বিশেষ আবেদন, আপনারা অনুগ্রহ করে খনিজ সম্পদ উত্তোলনের জন্য বারবার লিখে চলুন এবং যাতে বাংলাদেশি অর্থ বিদেশে পাচার না হতে পারে তার জন্যও প্রতিরোধ গড়ে তুলুন। শুধু বাপেক নামক এই সংস্থার

উপরই নির্ভর করা চলবে না, আমাদের দেশে রয়েছে অসংখ্য মেধাবী ইঞ্জিনিয়ার, বিশ্বস্ত দেশি-বিদেশি ইঞ্জিনিয়ারদের মাধ্যমে খনিজ সম্পদ অনুসন্ধান করা একান্ত অপরিহার্য। এদেশের সকল মানুষ আরব দেশের মতো ধনী হোক, এটাই আমার কামনা। জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু, জয় হোক সাধারণ মানুষের।
কবি আবু আহমেদ শিকদার।

About Gazi Mamun

Check Also

‘জনগণের ট্যাক্সের টাকা হেফাজতকে ফেরত দিতে হবে’

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে হেফাজতে ইসলামের তাণ্ডবের ঘটনার নিন্দা জানিয়েছে বাংলাদেশ ইউনাইটেড ইসলামী পার্টি। দলটির চেয়ারম্যান মাওলানা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *