মালয়েশিয়ান শিশুর মুখে ৭ মার্চের ভাষণ

মালয়েশিয়ান এক শিশু বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ দিয়েছে। মুহাম্মদ জহির ইরফান নামের মালয়েশিয়ান শিশুর কণ্ঠে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ যেই শুনেছে সেই মুগ্ধ হয়েছে। জহির ইরফানের বাবা শেখ জহিরের (বাংলাদেশি) ইউটিউব ও তার ব্যক্তিগত

ফেসবুকে প্রচার করেন। এরপর থেকে সামাজিক মাধ্যমে মানুষজন তাকে ধন্যবাদ জানিয়ে আসছেন। বঙ্গবন্ধুর ভাষণ কোনো নির্দিষ্ট দলের একক সম্পদ নয় তাই তো ঘরে ঘরে আজও শোনা যায় দরাজ কণ্ঠের সেই ‘ভাইয়েরা আমার’ আহ্বান শিশুরা এখনো

অনুকরণ করে বঙ্গবন্ধুকে।বাংলা ভাষায় সর্বকালের সেরা ভাষণটি ৫০ বছর ধরে বিশ্বের কোটি মানুষ হয়ত শহস্র কোটিবার শুনেছেন, দেখেছেন সেই ভাষণ রক্তঝরা একাত্তরের ৭ মার্চের সেই ভাষণ প্রজন্ম থেকে প্রজন্মান্তরে ছড়িয়ে পড়েছে বাঙালির মানসে।

ফেনী জেলার পশ্চিম ছনুয়া গ্রামের জান মিয়া হাজী বাড়ির বীর মুক্তিযোদ্ধা ফরিদ আহমেদের ছেলে শেখ জহির ২০০০ সালে পাড়ি জমান মালয়েশিয়ায়। পড়াশোনা করেন পেসিফিক কলেজে। ২০১১ সালে পেরাক রাজ্যের তাইপিংএর জায়নুলের মেয়ে নূর

আযিরাকে বিবাহ করেন। তাদের রয়েছে তিন সন্তান। দুই ছেলে এক মেয়ে। ২০১২ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর টুইন দুজন জন্মগ্রহণ করে মুহাম্মদ জহির ইরফান ও নূর আশরাফুননেছা হুমায়রা। সবাই ইংলিশ মিডিয়ামে লেখাপড়া করলেও বাসায় বাবার কাছে বাংলা ভাষা শিখছে তারা।বাবা শেখ জহির বিনোদন প্রেমী। বাংলাদেশের

কয়েকটি নাটকেও অভিনয় করেছেন তিনি। শেখ জহির এ প্রতিবেদককে বলেন, আমার বহু দিনের স্বপ্ন। জাতির জনকের ৭ মার্চের ভাষণ আমার ছেলের কণ্ঠে শুনব। আজ আমার স্বপ্ন বাস্তবায়ন হয়েছে। আমার ছেলে বঙ্গবন্ধুকে মনে প্রাণে ভালোবাসে। বাবার কাছ থেকে শোনা, তারপর ক্যাসেট বা সিডিতে শুনে শুনে ঐতিহাসিক সেই ভাষণ মুখস্থ করে ফেলে। জহির ইরফানের মতো

অনেক শিশুই বঙ্গবন্ধুর মতো করে বলতে ভালোবাসে, ‘তোমাদের যা কিছু আছে, তাই নিয়ে প্রস্তুত থাকো। রক্ত যখন দিয়েছি, রক্ত আরো দেব এ দেশের মানুষকে মুক্ত করে ছাড়বো, ইনশাআল্লাহ।’১৯৭১ সালের ৭ মার্চ ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে (বর্তমানে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান) ঐতিহাসিক সেই ভাষণ দিয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১৮ মিনিটের সেই ভাষণ নিয়ে অনেক গান, কবিতা, গল্প লেখা হয়েছে। কেউ কেউ বলেন বাঙালি নাকি

বিস্মৃতিপরায়ণ জাতি। তবে সত্যিকারের অমূল্য স্মৃতি যে বাঙালি সম্পদ হিসেবে যে আঁকড়ে থাকতে পারে তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ।১৯৭০ সালে পাকিস্তানের জাতীয় পরিষদ নির্বাচনে নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করে আওয়ামী লীগ। কিন্তু পাকিস্তানের সামরিক শাসকগোষ্ঠী দলটির কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর করেনি। এই প্রেক্ষাপটেই ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ এই ভাষণ দিয়েছিলেন স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

About Gazi Mamun

Check Also

জাতিসংঘের আহ্বানকে উপেক্ষা করে সুন্নি সংগঠনের প্রধানকে ফাঁসি দিল ইরান

জাতিসংঘের আহ্বানকে উপেক্ষা করে সুন্নি মুসলিমদের সংগঠন জাইশ আল-আদলের প্রধান জাভিদ দেহগানকে ফাঁসি দিয়েছে ইরান। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *