মাগুরায় ইসলাম গ্রহণের আহ্বান জানিয়ে অর্ধশত হিন্দু পরিবারকে চিঠি

মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার দ্বারিয়াপুর ইউনিয়নের চরগোয়ালদাহ ও মালাইনগর গ্রামে সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের অর্ধশত বাড়িতে হিন্দু ধর্ম ত্যাগ করে ইসলাম ধর্ম গ্রহণের আহ্বান জানিয়ে চিঠি দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার রাতে পরিচয় গোপন রেখে

এই ধরনের চিঠি দেওয়ার ঘটনায় ওই এলাকায় হিন্দু সম্প্রদায়ের মাঝে উদ্বেগ ও আতংক দেখা দিয়েছে। অজ্ঞাত ব্যক্তিদের দেওয়া এই চিঠির ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে বিভিন্ন মহল প্রতিবাদ জানায়। এরপর নড়ে-চড়ে বসে স্থানীয় প্রশাসন। পরে শনিবার

দুপুরে অভিযান চালিয়ে পুলিশ ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে তিন ব্যাক্তিকে আটক করে। আটকরা হলেন- উপজেলার চৌগাছি গ্রামের মঞ্জু বিশ্বাসের ছেলে ইউসুফ (৩৫), মহেশপুর গ্রামের ইয়াকুব মোল্যার ছেলে কুরবান (৩২) ও সাচিলাপুর গ্রামের আলীমুদ্দীনের ছেলে হাবিবুর রহমান (৪০)।হিন্দুদের বাড়ি বাড়ি

বিলি করা চার পাতার ওই চিঠির একটি কপি সমকালের হাতে এসেছে। এতে পূজা-অর্চনা বাদ দিয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করার কথা বলা হয়েছে। চিঠির একটি কপি- সমকাল শনিবার দুপুরে মালাইনগর গ্রামের পল্লী চিকিৎসক দীলিপ বিশ্বাস বলেন, ‘শুক্রবার রাতে একটি মোটরসাইকেলে করে তিনজন অজ্ঞাত

ব্যাক্তি আমার বাড়িতে একটি চিঠি দিয়ে চলে যায়। পরে খাম খুলে পড়ে দেখি- ‌ধর্মান্তরিত হয়ে ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করার কথা বলা হয়েছে।’ চর-গোয়ালদা গ্রামের চর মহেশপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জীবন মণ্ডল বলেন, ‘গতকাল রাত আটটার দিকে আমাদের তিন ভাইয়ের নামে তিনটি চিঠি দেওয়া হয়। রাত দশটার দিকে বাড়ি গিয়ে চিঠি খুলে দেখি, পূজা-অর্চনা বাদ দিয়ে এতে

ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করার কথা লেখা রয়েছে।’ চর গোয়ালদা গ্রামের বিপ্লব সরকার, নির্মল সরকার, সুধারঞ্জন গোস্বামী, ইন্দ্রজিত বিশ্বাস, আজয় মণ্ডল ও গজেন বিশ্বাস বলেন, তাদের বাড়িতেও একই ধরনের চিঠি দেওয়া হয়েছে। চিঠিতে ইসলামের দাওয়াত সম্বলিত বিভিন্ন কথা লেখা ছিল। চিঠির শেষে ইসলাম গ্রহণ করার আহ্বান জানানো হয়।

এদিকে শনিবার দুপুরে মাগুরার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তারেক আল মেহেদী, শ্রীপুরের উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ইয়াছিন কবীর, শ্রীপুর থানার ওসি মো. মুসুদ আহমদ ও হিন্দু সম্প্রদায়ের নেতৃবৃন্দ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। শ্রীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. ইয়াছিন কবীর বলেন, ‌‘চিঠির মাঝে কোনো

হুমকি-ধামকি না থাকলেও রাতের বেলা নিজেদের নাম পরিচয় গোপন করে কেন হিন্দু সম্প্রদায়ের অর্ধশত বাড়িতে এ ধরনের চিঠি দেওয়া হলো তা আমরা গুরুত্বের সঙ্গে খতিয়ে দেখছি।’
শ্রীপুর থানার ওসি মো. আলী আহমেদ মাসুদ বলেন, ‘এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে ইউসুফ, কুরবান ও হাবিবুর রহমানকে আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। এলাকায় যেন কোনো বিশৃঙ্খল

পরিস্থিতির সৃষ্টি না হয় তার জন্য পুলিশ সজাগ রয়েছে।’
এ বিষয়ে মাগুরার পুলিশ সুপার মো. জহিরুল ইসলাম মোবাইল ফোনে সমকালকে বলেন, ‘আটকদের জিঙ্গাসাবাদ চলছে। আমাদের কাজ এখোনো শেষ হয়নি। তাই এখনই এর চেয়ে বেশি কিছু বলা যাচ্ছে না।’ বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ শ্রীপুর উপজেলা শাখার সভাপতি শিশির শিকদার এ ঘটনার পেছনে কোন ষড়যন্ত্র রয়েছে কি-না তা খতিয়ে দেখতে প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন।

সুত্রঃ সমকাল

About Gazi Mamun

Check Also

২০০ টাকা চাদা না দিলে রিকশা নিয়ে যাবে পুলিশ!

পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে চা”দাবা’জির অভিযোগ বেড়েই চলছে। পরিবহন সেক্টর,ফুটপাত, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন সেক্টরে চালাচ্ছে চাদাবাজি। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *