মসজিদের ভিতর মুসল্লিদের ওপর হামলা ও হত্যার প্রতিবাদে রাজধানীতে শিবিরের বিক্ষোভ সমাবেশ

ঢাকা, চট্টগ্রাম ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় পুলিশ-ছাত্রলীগ-যুবলীগের হামলা ও গুলিতে নিহত হয়েছেন কয়েকজন ছাত্র ও হেফাজতে ইসলামের নেতা-কর্মী। এ ছাড়া অনেকজনের আহত হওয়ার প্রতিবাদে ছাত্রশিবিরের কেন্দ্রীয় সভাপতি সালাহউদ্দিন

আইউবীর নেতৃত্বে শুক্রবার রাত সাড়ে ১০টায় রাজধানীতে বিক্ষোভ মিছিল করেছে ছাত্রশিবির ঢাকা মহানগর উত্তর শাখা। এ সময় বিক্ষোভ মিছিলে ঢাকা মহানগর উত্তরের সভাপতি মাহমুদ মুরাদ ও সেক্রেটারি জাহাঙ্গির আলমসহ বিভিন্ন পর্যায়ের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

বিক্ষোভ উত্তর সমাবেশে শিবির সভাপতি বলেন, বাংলাদেশ ধর্মপ্রাণ মুসলমান ও মসজিদের দেশ। বাংলাদেশকে ভালোবাসতে হলে এদেশের ইসলাম প্রিয় ছাত্রজনতাকে ভালোবাসতে হবে, মসজিদকে ভালোবাসতে হবে। কিন্তু আজকে নিরপরাধ নিরীহ মুসল্লিদের ওপর পুলিশ ও সরকার দলীয় হামলার ঘটনা প্রমাণ করেছে তারা মূলত

এদেশকে ভালোবাসে না। বরং ভিন দেশ ও ভিনদেশী শাসকদের ভালোবাসতে বেশি আগ্রহী। ভিন দেশের স্বার্থ হাসিল করতে গিয়ে সরকার বাংলাদেশের মানুষের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছে। যৌক্তিক কারণে দেশ প্রেমিক জনতা চায়নি পার্শ্ববর্তী দেশের বিতর্কিত শাসক বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসের মতো গুরুত্বপূর্ণ অনুষ্ঠানে আসুক।

কিন্তু সরকার জনগণের ইচ্ছা আকাঙ্ক্ষার বিপরীতে অবস্থান নিয়েছে। তারা ধর্মপ্রাণ ১৮ কোটি জনগণের হৃদয়ে রক্তক্ষরণ করেছে। এদেশে স্বাধীনতার সংগ্রাম হয়েছে, শহীদরা তাদের পবিত্র রক্ত দিয়েছে গণতন্ত্র ও স্বাধীন মতপ্রকাশ করার জন্য। স্বাধীন মতপ্রকাশের অধিকার স্বাধীনতার অন্যতম প্রাপ্তি। কিন্তু স্বাধীনতা দিবসে জনগণের শান্তিপূর্ণ মতপ্রকাশের কর্মসূচিতে হামলা চালিয়ে এদেশের দেশপ্রেমিক ছাত্রজনতাকে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়েছে।
তিনি বলেন, দেশ প্রেমের বহি:প্রকাশ ঘটাতে গিয়ে ছাত্রজনতা

আজ জীবন দিয়েছে। এ রক্ত বৃথা যাবে না। সময়ের ব্যবধানে এ রক্ত কথা বলবে। যে মতপ্রকাশ করতে গিয়ে আজকে আমাদের ভাইয়েরা শহীদ হয়েছেন তাদের স্বপ্ন বাস্তবায়নে ছাত্রশিবির কাজ করে যাবে। ছাত্রশিবির ছাত্রজনতাকে সাথে নিয়ে মানুষের অধিকার আদায়ে ভূমিকা পালন করবে, ইনশাআল্লাহ। এ সময় হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, দেশ ও ইসলাম প্রিয় ছাত্রজনতার রক্ত সস্তা

নয়। অবিলম্বে এই ঘটনার সাথে জড়িত পুলিশ সদস্য ও সরকার দলীয় নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার এবং শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। আমরা শহীদ ভাইদের সর্বোচ্চ জান্নাত কামনা করছি। তাদের শোক সন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছি। শহীদের সহপাঠি-সহকর্মীদের অন্তরের প্রশান্তির জন্য মহান আল্লাহ তায়ালার দরবারে দোয়া করছি। ছাত্রশিবির সব সময় দেশ ও ইসলাম প্রিয় ছাত্রজনতার পাশে থাকবে, ইনশাআল্লাহ।

About Gazi Mamun

Check Also

কঠোর লকডাউনেও শিল্প-কারখানা খোলা রাখার সিদ্ধান্ত

করোনা সংক্রমণ রোধে আগামী ১৪ এপ্রিল থেকে শুরু হতে যাওয়া কঠোর লকডাউনে গণপরিবহন ও অফিস …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *