লকডাউনের দ্বিতীয় দিনে সড়কে দীর্ঘ যানজট!

করোনাভাইরাস মহামারির দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবেলা ও সংক্রমণ রোধে সরকার ঘোষিত ‘কঠোর লকডাউন’ এর দ্বিতীয় দিন চলছে আজ। লকডাউনের প্রথম দিন রাজধানীর সড়ক ফাঁকা থাকলেও দ্বিতীয় দিন সকাল থেকে যানবাহনের

আধিক্য দেখা গেছে। লকডাউন চলাকালীন অতি জরুরি প্রয়োজন না হলে বাইরে বের হওয়ায় রয়েছে নিষেধাজ্ঞা। বাইরে বের হতে হলে লাগবে পুলিশের ‘মুভমেন্ট পাস’। মানুষের চলাচল কমাতে রয়েছে পুলিশের তৎপরতা। প্রথম দিনের মতোই দ্বিতীয় দিনেও

রাজধানীর মোড়ে মোড়ে পুলিশের তল্লাশি চৌকি চোখে পড়েছে। তবে এদিন সড়কে যানবাহনের চাপে যানজট লক্ষ্য করা গেছে। সকাল ৯টার দিকে দেখা যায়, খিলক্ষেত-বনানী-এয়ারপোর্ট রোডে প্রায় দেড় কিলোমিটার জুড়ে ট্রাক, বাস, প্রাইভেটকারের দীর্ঘ সাড়ি। জানা গেছে, পুলিশের চেকপোস্ট এবং কঠোর তল্লাশির

ফলে সৃষ্টি হয়েছে এ যানজট। এছাড়া রাজধানীর মধ্যবাড্ডা, গুলশান-১ এর পুলিশ প্লাজা থেকে হাতিরঝিল পর্যন্ত এবং রাজধানীর বিভিন্ন মোড়ে যানজট পরিস্থিতি তৈরি হয়। মগবাজার, মৌচাক ও মালিবাগ, সায়েন্স ল্যাব, ধানমন্ডি, শ্যামলি মোড়েও ছিল একই চিত্র। জরুরি কাজে অফিসমুখী যাত্রীদের ছেড়ে দেয়া হলেও ব্যক্তিগত গাড়ি নিয়ে যারা বের হয়েছেন, তাদের পড়তে হচ্ছে পুলিশের জেরার মুখে। যারা জরুরি সেবা দিতে অফিসে যাচ্ছেন তাদের বিষয়ে কোনো আপত্তি নেই পুলিশের। অন্যদের

ক্ষেত্রে মুভমেন্ট পাসকেই প্রাধান্য দিচ্ছেন তারা। রাজধানীর মধ্যবাড্ডায় চেকপোস্ট বসিয়েছে পুলিশ। তাদের তল্লাশির কারণে সড়কে দীর্ঘ যানজট তৈরি হয়। এসময়, গণমাধ্যম ছাড়া প্রতিটি গাড়ির তল্লাশি নিতে দেখা যায় পুলিশকে। তবে অনেকের অভিযোগ, মুভমেন্ট পাস নিতে গিয়ে নানা জটিলতায় পড়েছেন তারা। বিষয়টি নজরে আনা হলেও মানতে নারাজ দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা।

উল্লেখ্য, করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় এক সপ্তাহের জন্য কঠোর লকডাউন জারি করেছে সরকার। লকডাউন চলাকালে সাধারণ মানুষকে ঘরের বাইরে বের হতে নিরুৎসাহিত করা হচ্ছে। তবে জরুরি প্রয়োজনে বাইরে যাওয়ার জন্য ‘মুভমেন্ট পাসে’র ব্যবস্থা করেছে পুলিশ। পুলিশের পক্ষ থেকে এর মধ্যে বলা

হয়েছে, কঠোর লকডাউন কার্যকর করতে সরকার যে নির্দেশনা দিয়েছে তা বাস্তবায়নে এবার কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

About Gazi Mamun

Check Also

২০০ টাকা চাদা না দিলে রিকশা নিয়ে যাবে পুলিশ!

পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে চা”দাবা’জির অভিযোগ বেড়েই চলছে। পরিবহন সেক্টর,ফুটপাত, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ বিভিন্ন সেক্টরে চালাচ্ছে চাদাবাজি। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *