আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’, ট্রেন বাঁধা হচ্ছে চেন দিয়ে

ধেয়ে আসছে বঙ্গোপ’সাগরে সৃ’ষ্টি হওয়া ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’। ভারতে কারশেড বা বড় স্টেশনে দাঁড়িয়ে থাকা ট্রেন বাঁধা থাকবে চেন দিয়ে। সাধারণ যাত্রীবাহী ট্রেন বন্ধ। তবে দূরপাল্লার ট্রেন চালু রয়েছে। ফলে ঝড় নিয়ে ভাবতেই হচ্ছে

রেলকে। শুক্রবার ভারতের পূর্ব রেলের জিএম মনোজ যোশী বিভাগীয় ক’র্তা ও ডিআরএম’দের সাথে এনিয়ে জরুরি বৈঠক করে এ বি’ষয়ে একাধিক নির্দেশ দেন। তবে রেল হাসপাতালগু’লোকে ঝড়ের তাণ্ডব থেকে সুরক্ষিত রাখতে নানা

আপৎকালীন ব্যবস্থা তৈরি রাখার পাশাপাশি অ্যাক্সিডেন্ট রিলিফ ট্রেন ও কর্মীদের তৈরি থাকতে বলা হয়েছে। কারণ, এই মুহূর্তে প্রতিটি রেল হাসপাতালে কোভিড আ’ক্রা’ন্ত রোগীতে ভর্তি। যাদের মধ্যে অনেকেই ক্রিটিক্যাল স্টেজে। ফলে চিকিৎসা বিভ্রাট যাতে না ঘটে সেজন্য কর্মীদের সজাগ থাকতে বলা হয়েছে।

বুধবার রাজ্যের সাথে রেলক’র্তাদের এনিয়ে বৈঠকের পর রাজ্যের নির্দেশে নিজেদের পরিকাঠামোকে সাজাতে ব্যস্ত হয়ে পড়ে রেল। আগামী ২৫ মে থেকে ২৬ মে দক্ষিণ চব্বিশ পরগনার সমুদ্র উপকূলে ঝড় আছড়ে পড়ার আশ’ঙ্কা রয়েছে। ওই দিনগু’লোতে শিয়ালদহ ও হাওড়া ডিভিশনকে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন জিএম। দুই ডিভিশনের ইঞ্জিনিয়ারিং, অ’পারেশন,

সিগন্যালিং বিভাগগু’লোকে ঝড়ের সাথে মোকাবেলা করার সব রকমের প্রস্তুতি রাখতে নির্দেশ দিয়েছে ক’র্তৃপক্ষ। হাওড়ার ডিআরএম সুমিত নারুলা বলেন, হাওড়া কারশেড এলাকা জলে প্লাবিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। ফলে সেই এলাকা থেকে সমস্ত ট্রেন সরিয়ে অন্যত্র রাখার পাশাপাশি নিকাশি ব্যবস্থা উপযুক্ত রাখা হবে। পানি তুলে ফেলার জন্য পাম্পগু’লিকে সক্রিয় রাখা হবে।

এছাড়া ওভারেহেডের তার ছিঁড়ে বিপত্তি হওয়ার আশ’ঙ্কায় টাওয়ার ভ্যান প্রস্তুত রাখার সাথে ইলেকট্রিক বিভাগের কর্মীদের চব্বিশ ঘণ্টা কাজের জন্য হাজির থাকতে হবে। একই রকমভাবে ওভারহেডের তার ও রেলের অন্য জায়গায় গাছের ডাল পড়ার পরিস্থিতি মোকাবিলায় কর্মীদের মোতায়েন রাখা হবে। ঝড়ের তাণ্ডবে কারশেড এলাকা বা অন্য রোডসাইড এলাকায় যেখানে ট্রেনগু’লো রাখা

হবে, সেই বগিগু’লি যাতে গড়িয়ে বিপত্তি না ঘটায় এজন্য লাইনের সাথে বগিগু’লোকে বেঁধে রাখা হবে চেন দিয়ে। পরিস্থিতি মোকাবেলায় সব রকমের প্রস্তুতি নিচ্ছে শিয়ালদহ ডিভিশনও। ডিআরএম এস পি সিং বলেন, ডিভিশনের মধ্যে ঝড়ের বেশি প্রভাব পড়ে শিয়ালদহ দক্ষিণ শাখায়। সব রকমের ব্যবস্থার সাথে রেলের বিপর্যয় সাম’লানোর মতো বিভাগগু’লোকে হাজির রাখা হবে নির্দি’ষ্ট এলাকায়। নদী ব্রিজগু’লোর পরিস্থিতি আগাম

পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে খতিয়ে দেখা হবে। এছাড়া লাইনে পেট্রোলিংয়ে যুক্ত কর্মীদের ধস নামা’র দিকটিতে বিশেষ নজর দিতে হবে।

About Gazi Mamun

Check Also

সাড়ে ৩ হাজার কোটি টাকা গেল কোথায়

মাত্র ৪৪ মিলিমিটার মাঝারি বৃষ্টি ঝরেছে গতকাল রোববার বন্দরনগরী চট্টগ্রামে। আর তাতেই হাঁটু থেকে কোমরপানিতে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *