এবার তুর্কি ড্রোনের বিশ্বজয়!

তুরস্ক ভিত্তিক সামরিক নিউজ এজেন্সি একটি খবরে জানিয়েছে, তুরস্ক থেকে ড্রোন ক্রয়ের জন্য ইউরোপীয় দেশ ব্রিটেন, জার্মানি, হাঙ্গেরি, সার্বিয়া, বুলগেরীয়া। আফ্রিকান দেশ মরক্কো। এশিয়ান দেশ পাকিস্তান, কাজাখিস্তান,

মালয়েশিয়া আলোচনা করছে।
সম্ভবত এদের সবাই তুরস্ক থেকে ড্রোন ক্রয় করবে। এই চুক্তি গুলো সফল হলে বিশ্বে ড্রোন প্রযুক্তিতে সবচেয়ে সফল দেশে পরিণত হবে তুরস্ক। কানাডা সহ পশ্চিমা অনেক দেশই তুরস্কের

অগ্রযাত্রা থামানোর ব্যর্থ চেষ্টা করেছে। তবে তুরস্ক ক্রমেই বিশ্ব সামরিক বাণিজ্যে নিজের অবস্থান শক্ত করছে। এভাবে চলতে থাকলে আগামি কয়েক বছরের মধ্যে তুরস্ক সেরা ১০ সমরাস্ত্র বিক্রেতা দেশের মধ্যে চলে আসবে। তাদের বর্তমান অবস্থান ১৪

তম। এবং মুসলিম বিশ্বের প্রথম স্থানে। ইসরাইলের রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে যাচ্ছে আয়ারল্যান্ড
আরব দেশগুলোকে শিক্ষা দিয়ে ইসরাইলের রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করে অবৈধ দেশটির বিরুদ্ধে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করতে যাচ্ছে আয়ারল্যান্ড। ফিলিস্তিনের ভূমিতে ইসরায়েলের বসতি স্থাপনা

নির্মাণ করাকে অবৈধ বলে ঘোষনা করেছে আয়ারল্যান্ড সরকার।
এ নিয়ে আইরিশ পার্লামেন্টে উত্থাপিত প্রস্তাবটি পাস হলে দেশটি থেকে ইসরায়েলি রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করা হতে পারে, এমনকি অবরোধও আরোপ করা হতে পারে। ইসরায়েলের বিরুদ্ধে কোনো ইউরোপিয়ান দেশের এ ধরনের প্রস্তাব এটাই প্রথম। আইরিশ

পররাষ্ট্রমন্ত্রী সিমন কভনি গতকাল মঙ্গলবার বলেন, বিরোধী সিন ফেইন প্রস্তাবটি উত্থাপন করেছে। আর প্রস্তাবটির প্রতি পুরো আয়ারল্যান্ডের গভীর অনুভূতি রয়েছে। ফিন গেল পার্টির সদস্য কোভনি পার্লামেন্টে বলেন, ইসরায়েল যে গতিতে, মাত্রায় ও কৌশলে বসতি সম্প্রসারণ করছে, তাতে করে বাস্তবে কী ঘটছে, সে ব্যাপারে আমাদের সৎ থাকতে হবে। এটা আসলে কার্যত

দখলদারিত্ব। তিনি বলেন, বিষয়টি আমরা সহজভাবে নিতে পারছি না। আমরা ইউরোপিয়ান ইউনিয়নভুক্ত প্রথম রাষ্ট্র হিসেবে তা করতে চাচ্ছি। আমরা কিছু করার জন্যই এ পদক্ষেপ গ্রহণ করতে যাচ্ছি। সিন ফেইনের পররাষ্ট্রবিষয়ক মুখপাত্র জন ব্র্যাডলি পার্লামেন্টে প্রস্তাবটি উত্থাপন করেছেন। তিনি দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর উক্তিকে

স্বাগত জানিয়েছেন। আরো কয়েকটি দল প্রস্তাবটি সমর্থন করেছে। প্রস্তাবটি পাস হলে আইরিশ সরকারকে সে দেশে আয়ারল্যান্ডে নিযুক্ত ইসরায়েলি রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করতে হবে।
এছাড়া ইসরায়েলের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক অবরোধ আরোপ করতে হবে। বেশির ভাগ দেশই ১৯৬৭ সালের যুদ্ধে দখল করা জায়গায় ইসরায়েলি বসতি স্থাপনকে অবৈধ মনে

করে। তাদের মতে, এসব কাজ ফিলিস্তিনিদের সঙ্গে শান্তি স্থাপনে বাধা। কোভনি বলেন, প্রস্তাবটি গ্রহণ করা হতে পারে যদি তাতে গাজা থেকে ইসরায়েলে সাম্প্রতিক নিক্ষেপ করা রকেটের নিন্দা করা হয়। কিন্তু বাম-ঘেঁষা সিন ফেইন দল হামাসের হামলাকে নিন্দা করে আনা সরকারি সংশোধনী প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছে।
ব্র্যাডলি বলেন, গত জানুয়ারি থেকে ইসরায়েল আরো ২,৫০০

বসতিকে অনুমোদন করেছ। এসবের মধ্যে ৪৬০টি পূর্ব জেরুসালেমে। অর্গ্যানাইজেশন পিস নাও ২০২০ সালে জানিয়েছিল, ইসরায়েল ১২ হাজার বসতি ইউনিটের অনুমোদন দিয়েছে বা তা নিয়ে অগ্রসর হচ্ছে। ২০১২ সালের পর এটিই সর্বোচ্চ সংখ্যা।

About Gazi Mamun

Check Also

গোটা ভারতজুড়ে ইঞ্জিনিয়ারিং ভর্তি পরীক্ষায় মেধা তালিকার শীর্ষে মুসলিম কিশোরী !

সারা ভারতে একযোগে অনুষ্ঠিত ইঞ্জিনিয়ারিং ভর্তি পরীক্ষা জয়েন্ট এনট্রেন্স এক্সামিনেশন মেইন (জেইই-মেইন) পরীক্ষার ফলাফলে সম্মিলিত …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *