পবিত্র কাবা শরীফের নিরাপত্তা প্রধান মে’জর জে’নারেল আল নাইফি ইন্তেকাল করেছেন

আ’ল্লা”হ’র ঘর পবিত্র কাবা শ’রী’ফের নিরাপত্তা প্রধান মেজর জে’না’রে’ল আল নাইফি ইন্তেকাল ক’রে’ছেন। (ইন্নালিল্লাহ ওয়া ইন্না ইলাইহে রাজিউন)তিনি দী’র্ঘ’জীবন ম’স’জি’দু’ল আল হারামের নি’রাপত্তা প্রধানের

দায়িত্বে ছি’লে’ন,দীর্ঘ জী’বনে তিনি নিরবে নিরলস ভাবে পবিত্র কা’বা’র খেদমতে নিয়ােজিত ছি’লে’ন।হে -আ’ল্লা’হ উনা’কে জা’ন্না’তের মে’হঃমান বানিয়ে নিন আমিন

আরো পড়ুনঃ
পবিত্র ম’ক্কা’য় ১৯৪১ সালে লাগাতার সাতদিন বৃষ্টি হয়। ফলে প’বি’ত্র কাবা প্রা’ঙ্গ’ণে প্রায় ছয় ফুট পানি হয়ে ভায়াবহ বন্যা পরি’স্থিতি তৈরি হয়।বন্যার মধ্যে বাহরাইনের এ’ক’জ’ন পবিত্র কাবা ঘর তাওয়াফ করেন। তাওয়াফের ছবি তো’লা’র পর শায়খ

আলি আল আওয়াদি না’মের বাহরাইনের লোকটি স’বা’র কাছে প’রিচিত হন।৮ দশক আগে তোলা ছ’বি’তে দেখা যায়,আল আওয়াদি পানির মধ্যে সাঁতার কা’ট’ছে’ন।কাবা প্রাঙ্গণে মা’কামে ইবরাহিম থেকে মাত্র দেড় মি’টা’র দূরত্বে আছেন।এদিকে তাঁর ভাই ও বন্ধুরা পেছনে কা’বার দ’র’জা’য় বসে আছেন।২০১৫ সালে তা’ও’য়া’ফ সাঁতার কেটে তা’ও’য়া’ফ করা আল

আওয়াদি ৮৬ বছর বয়’সে মারা যান।এক বিবৃতিতে আল
আওয়াদি ব’লে’ন,তখন আমার বয়স মাত্র ১২ ব’ছ’র।
মক্কার একটি স্কুলে প’ড়’ছি।লাগাতার সা’ত’দিন অবিরত বৃষ্টি হয়।তখন ও দুই বন্ধু মিলে এক’জন শিক্ষকের সঙ্গে হারাম শ’রি’ফে যাই।পুরো কাবা প্রা’ঙ্গ’ণে ভয়াবহ বন্যা দেখতে পাই।তখন আমি প’বি’ত্র কাবা প্রা’ঙ্গণ তাওয়াফ শুরু করি।মৃত্যুর আগে ২০১৩ সালে কু’য়েতের টিভি আল রাই টেভিতে

স্মৃ’তি’চা’র’ণ করে শায়খ আল আওয়াদি বলেন,বন্যার পানিতে অনেক মানুষ প্রাণ হা’রায়।এমনকি বাড়ি-ঘর,গাড়ি,ও গ’বা’দি পশু ভেসে যেতে দে’খে’ছি।সাতদিন পর বৃষ্টি থা’ম’লে আমার ভাই হা’নিফ,বন্ধু’বর মুহাম্মদ আল তাইয়িব,ও হাশিম আল বার মস’জি’দু’ল হা’রা’মে’র অবস্থা দেখার জন্য যাই।আ’মা’দের শিক্ষক আব্দুল রউফ-ও সঙ্গে ছিলেন।তিনি আরো বলেন,একজন দক্ষ সাঁ’তা’রু ছিলাম।তাই সাঁতার কেটে তাওয়াফের চিন্তা মাথায় আস’ল।আমরা চারজন পানিতে সাঁতার শুরু করি। এদিকে

দা’য়ি’ত্বর’ত পুলিশ সদস্যরা আমাদের থামানোর চেষ্টা করে।পুলিশ ভেবেছে,সাঁতার কেটে আ’ম’রা হাজরে আসওয়াদ চুরি করার চেষ্টা করছি।আমি পুলিশকেবোঝাতে চেষ্টা করি যে আ’ম’রা শুধুমাত্র সাত চক্কর দেব।এদি’কে অপর দুই বন্ধু ক্লান্ত হয়ে সাঁ’তা’র বন্ধ করে কাবা ঘরের দরজায় গিয়ে আ’শ্র’য় নেয়।শায়খ আল আওয়াদি আরো জা’নান,আদেশ অমান্য করায় পুলিশ আমাকে গুলি করে কিনা সেই ভয়ে তটস্থ ছি’লা’ম।তবে মনে মনে আ’ন’ন্দ হ’চ্ছি’ল।কারণ পৃথিবীতে এ’ভা’বে সাঁতার কেটে কা’বা তাওয়াফের ঘটনা খুবই বিরল।পরে জানতে

পারি,আ’সলে পু’লি’শে’র বন্দুকে গুলি ছিলো না।ব’র্ত’মানে মসজিদুল হারামের জা’দু’ঘরে ও বিভিন্ন প্রাচীন চিত্রকলার দোকানে সাঁ’তা’র কেটে তাওয়াফের দুর্লভ ছবি’টি ঝুলানো আছে।
আল আওয়াদির ছেলে আব্দুল মজিদ অনেক বছর আগে হজ ক’র’তে গিয়ে মক্কা থেকে বাবার দুর্লভ ছবি বাবাকে উ’প’হা’র দিতে কিনে আনেন।তবে তিনিই প্রথম সাঁতার কেটে তাও’য়া’ফ ক’রেছেন বিষয়টি মোটেও তা নয় বরং মহানবী মুহাম্মদ (সা.)-এর জী’ব”ন’চরিত থেকে জানা যায়,সাহা’বি আবদুল্লাহ আল জুবায়ের(রা.)প্রথম সাঁতার কেটে কাবা তাওয়াফ ক’রে’ছেন।

এছাড়াও আরো অনেকে সাঁ’তার কেটে পবিত্র কাবা ঘর তাওয়াফ করেছেন।প্রখ্যাত ই’স’লা’মি স্কলার আল দিন বিন জা’মাআ (রহ.)-ও সাঁতার কেটে তা”ও’য়াফ করেন।এমন’কি তিনি প্রতি বার হাজরে আসওয়াদ চুম্বন করেন।ইসলামের ইতিহাসে সাঁতার কেটে কাবার তাওয়াফের ঘটনা খুবই বিরল। মক্কা নগরীতেবেশ কয়েক বার বন্যা হ’য়েছে।ইতিহাসবিদদের মতে,তবে তা সাঁ’তা’র কাটার পরিমাণ মতো ছিল না।তাছাড়া বন্যা দুই বার সং’ঘটিত হয়।একবার ইসলামী যুগে।আ’রেকবার আজ থেকে ৮০ ব”ছ’র আগে।

About Gazi Mamun

Check Also

ঘুমানোর আগে মহানবী (সা.) যা করতেন!

প্রিয় নবী হযরত মুহাম্মদ (সা.) এর প্রতিটি কাজ তার আদর্শ এবং রেখে যাওয়া পথ-পদ্ধতি সম্পর্কে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *