বিমানবন্দরে ফাঁকি দিয়ে পালালো ৬ মালয়েশিয়া প্রবাসী

দেশে আসার পর যাত্রীদের যাওয়ার কথা ছিল হোটেলে। সেখানেই বাধ্যতামূলক ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কো’য়ারে’ন্টিনে থাকার কথা তাদের। তবে বিমানবন্দরে ফাঁ’কি দিয়ে যাত্রী চলে গেছেন নিজের বাড়িতে। মঙ্গলবার (১৫ জুন)

শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে ঘটেছে এ ঘটনা। মালয়েশিয়া থেকে সিঙ্গাপুর ট্রানজিট হয়ে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্সে আসা কমপক্ষে ৬ যাত্রী প্রাতিষ্ঠানিক কো’য়ারে’ন্টিনে না গিয়ে নিজের বাড়িতে চলে গেছেন। ১১টি দেশকে ঝুঁ’কিপূর্ণ তালিকায় রেখে এসব দেশ

যাতায়াত নি’ষি’দ্ধ করেছে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (বেবিচক)
৪ জুন থেকে কার্যকর হওয়া বেবিচকের ১১টি ঝুঁ’কিপূ’র্ণ দেশের তালিকায় রয়েছে মালয়েশিয়া। তবে সরকারের অনুমতি নিয়ে এসব দেশে ১৫ দিনের মধ্যে ভ্রমণকারী (বসবাসকারী নয়) বাংলাদেশি

নাগরিক দেশে আসতে পারবেন। এক্ষেত্রে তাদের নিজ খরচে সরকার নির্ধারিত হোটেলে বা’ধ্যতা’মূলক ১৪ দিনের প্রাতিষ্ঠানিক কো’য়ারে’ন্টিনে থাকতে হবে। বিদেশে ফ্লাইটে ওঠার আগেই হোটেল বুকিং করতে হবে। সূত্র জানায়, মালয়েশিয়া থেকে

সিঙ্গাপুর ট্রানজিট হয়ে সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন্সে আসা ৬ জন যাত্রী প্রাতিষ্ঠানিক কো’য়ারেন্টি’নে থাকার জন্য হোটেল বুক করেছিলেন। তাদের মধ্যে ৫ জন একই পরিবারের সদস্য। বুকিং করা হোটেলের প্রতিনিধিরা বেলা ১২টা থেকে প্রায় আড়াইটা পর্যন্ত যাত্রীদের রি’সিভ করতে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অপেক্ষা

করেন। কিন্তু তাদের দেখা না পেয়ে হ’তাশ হয়ে ফিরে আসেন। পরবর্তীতে যাত্রীদের সঙ্গে হোয়াটসঅ্যাপে যোগাযোগ করলে হোটেল প্রতিনিধিদের জানান, তারা বাসায় চলে এসেছেন, হোটেলে যাবেন না। সূত্র জানায়, মালয়েশিয়া থেকে আসা যাত্রীদের মধ্যে একজনের নাম আলি আহমেদ, পাসপোর্টের তথ্য অনুযায়ী তার গ্রামের বাড়ি হবিগঞ্জে। এছাড়া বাকি ৫ জন একই পরিবারের

সদস্য। পাসপোর্ট অনুযায়ী তাদের গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহে।
তারা হলেন, জিয়া উস শামস, তার স্ত্রী জান্নাতুন নাহার রিয়া, ছেলে জায়ান খান, কন্যা জিয়ানা জাফরিন খান এবং মা জাকিয়া খান। বেবিচকের নির্দেশনা অনুসারে সিঙ্গাপুর থেকে আসা যাত্রীদের প্রাতিষ্ঠানিক কো’য়ারে’ন্টিনে থাকতে হয় না। এ যাত্রীরা সিঙ্গাপুর ট্রানজিট হওয়ার সুযোগ কাজে লাগিয়ে মালয়েশিয়া থেকে আসার তথ্য গো’পন করে বিমানবন্দর থেকে চলে এসেছেন।

হোটেল মেমেন্টো ইন্টারন্যাশনালের সিনিয়র ম্যানেজার মো. রিপন সরদার জানান, আলি আহমেদ নামের একজন যাত্রী আমাদের হোটেলে রু’ম বুক করেছিলেন। কিন্তু তিনি কো’য়ারে’ন্টিনের জন্য হোটেলে না এসে বিমানবন্দর থেকে বাড়িতে চলে গেছেন। রাফেলসিয়া সার্ভিস অ্যাপার্টমেন্টের ম্যানেজার রাশেকুল ইসলাম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, জিয়া উস শামস নামের একজন

ব্যক্তি আমাদের এখানে বুকিং করেছিলেন। আমাদের লোকজন তাকে রিসিভ করতে বিমানবন্দরে গিয়েছিল। পরে খোঁজ নিয়ে জানতে পারি তিনি বিমানবন্দর থেকে বাড়িতে চলে গেছেন।

About Gazi Mamun

Check Also

কাতারে ভিজিট ভিসায় যে ধরনের বাংলাদেশিদের আগমন নিষিদ্ধ

কাতারে সম্প্রতি ভ্রমণনীতি আপডে’ট করা হয়েছে। এতে আনা হয়েছে নানারকম পরিবর্তন। বাংলাদেশি নাগরিকদের বেলায় কোনো …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *