উত্তেজনা চরমে, মহাসাগরে স্থায়ী ফোর্স গড়বে আমেরিকা!

চীনের সঙ্গে আমেরিকার যে দ্বন্দ্বপূর্ণ সম্পর্ক চলছে, সেই সুযোগে ফের সংগঠিত হচ্ছেন ন্যাটো নেতারা। সাবেক মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প চীনকে পররাষ্ট্র নীতির শীর্ষ অগ্রাধিকার দেওয়ার চার বছর পর ন্যাটো মিত্ররা

চীনকে নিরাপত্তা চ্যালেঞ্জ ঘোষণা করেছে এবং বলেছে যে চীনারা বিশ্ব শৃঙ্খলাকে দু’র্বল করার জন্য কাজ করছে। পেন্টাগনের চায়না টা’স্ক ফো’র্সের কাজের বাইরে এই আলোচনা বাড়তে থাকে। বাইডেন মার্চ মাসে চীন সম্পর্কিত নীতি এবং প্রক্রিয়াগুলি পরীক্ষা

করতে বলেন পেন্টাগনের শীর্ষ ভারত-প্রশান্ত মহাসাগরীয় নীতি কর্মকর্তা প্রতিরক্ষা সচিব লয়েড অস্টিনের কাছে সুপারিশ উপস্থাপন করেছেন। একজন প্রতিরক্ষা কর্মকর্তা মন্তব্যের অনুরোধে সাড়া দিয়ে জোর দিয়ে বলেন যে চীনের টাস্ক ফোর্স থেকে উদ্ভূত

কোনও পরিকল্পনাই চূড়ান্ত করা হয়নি চীনের অস্ত্র নিয়ে শক্তিশালী হচ্ছে পাকিস্তান:দুশ্চিন্তায় ভারত! একদিকে গত দুই দশকে যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে পাকিস্তানের সম্পর্কের অ’বনতি হয়েছে। অন্যদিকে দেশটি ব্যাপকভাবে চীনের ওপর নির্ভরশীল হয়েছে। দীর্ঘদিন থেকেই চীন পাকিস্তানকে অ’স্ত্র স’রবরাহ করে আসছে। বলা হয়ে থাকে

সাম্প্রতিক সময়ে চীন-পাকিস্তান সম্পর্ক আরও গভীর হয়েছে। চীন পাকিস্তানের কাছে ব্যাপকভাবে তাদের সরঞ্জাম রপ্তানি করেছে। চীন পাকিস্তানের কাছে যে সকল শক্তিশালী অ’স্ত্র ও অ’স্ত্রসর’ঞ্জাম বিক্রি করেছে সেগুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো-

১. পারমাণবিক অ’স্ত্র কর্মসুচি: ১৯৯০ সালে পার’মাণবিক অ’স্ত্র লাভ পা’রমাণবিক অ’স্ত্র হ্রা’সক’রণের ইতিহাসে সবথেকে বড় ব্যর্থতা মনে করা হয়। বলা হয়, পাকিস্তানের পা’রমাণ’বিক অ’স্ত্র কর্ম’সূচিতে চীনের তাৎপর্যপূর্ণ সহযোগিতা রয়েছে। অভিযোগ রয়েছে- চীন মি’সাই’ল, ওয়া’রহেড ডিজাইন, ইউরেনিয়াম সরবরাহ করেছে পাকিস্তানে। এর রাজনৈতিক উদ্দেশ্য স্পষ্ট।

ভারতের ক্রমবর্ধমান আ’ঞ্চলিক উচ্চাভিলাষের বিরু’দ্ধে পাকিস্তান প্রধান নস্যা’ৎকারী হিসেবে কাজ করছে। তবে এটি স্পষ্ট যে, পার’মাণবিক স’হায়তা চীনা-পাকিস্তান প্রতিরক্ষা সহযোগিতার সবচেয়ে মা’রাত্ম’ক উদাহরণ।

২. জেএফ-১৭ ফা’ইটার: এটি পাকিস্তান বিমা’নবাহিনীর নতুন ধরনের মাল্টিরোল ফাইটার যা আমেরিকান এফ-১৬ সি বিমানের স্থান দখল করেছে। অত্যাধুনিক বৈশিষ্ট্যসম্পন্ন যু’দ্ধ’বিমা’নটির ‘এয়ার-টু-এয়ার ও এয়ার-টু-গ্রাউন্ড’ যু’দ্ধ করতে পারে। এ ছাড়া সচল রা’ডারসহ ‘এয়ার-টু-এয়ার মি’সাই’ল ও এয়ার লা’ঞ্চড ক্রুজ মি’সাই’ল’ রয়েছে।

৩. এ-১০০ মাল্টিপল র’কে’ট লাঞ্চার: যু’দ্ধক্ষে’ত্রে অন্যতম প্রা’ণঘা’তী সমরা’স্ত্র হলো মা’ল্টিপল র’কে’ট লা’ঞ্চার। শত্রু স্থির ও অপ্রস্তুত থাকলে পুরো ইউনিট ধ্বংস করে দিতে পারে এটি। মাল্টিপল র’কে’ট সি’স্টেমের মধ্যে এ-১০০ সবথেকে নতুন। এর প্রথম ইউনিট চীন পাকিস্তানের কাছে বিক্রি করে ২০০৮ সালের দিকে। দূরবর্তী রকেট লাঞ্চারের অনুশীলন ভারত ও পাকিস্তান উভয়েই চালিয়েছে

৪. ভিটি-১এ: ভিটি-১এ বিকল্পভাবে আল-খালিদ অথবা এমবিটি-২০০০ নামে পরিচিত যা এই অঞ্চলে অধিক সক্ষম ট্যাংক। এর ডিজাইন চীন ও পাকিস্তান যৌথভাবে করেছে। এটি পরিষ্কার স্লেটের মতো। ট্যাং’কের সঙ্গে রয়েছে ‘থা’র্মাল গানার সাইট’ ও একটি ‘প্যানোরামিক কমান্ডার সাইট এবং একটি ১২৫ এমএম ব’ন্দু’ক। রাশিয়া ও পশ্চিমা ট্যাং’কের মতো উন্নতমানের না হলেও তা টি-৭২এম’র সঙ্গে যু’দ্ধ করতে সক্ষম। পাকিস্তান বর্তমানে ভিটি-৪ ট্যাং’ক সং’গ্রহের চেষ্টা করছে।

৫. এইচকিউ-১৬: পাকিস্তানি সামরিক বাহিনী দীর্ঘদিন ধরে আকাশ প্রতিরক্ষার জন্য পাকিস্তান বিমানবাহিনীর উপর নির্ভরশীল ছিল। তবে দেশটির সেনাবাহিনী কাছে এখন চীনের মাঝারি ধরনের এইচকিউ-১৬ মি’সাই’ল রয়েছে ভূমি থেকে যু’দ্ধ পরি’চালনার জন্য। তবে চীনের লং রে’ঞ্জড মি’সাই’ল এইচকিউ-৯ পেতে দুই দেশের মধ্যে সমঝোতা চলছে।

About Gazi Mamun

Check Also

ওমানে দেড় বছর পর ম`সজি`দে জু`মার না`মা`জের অনুমোদন

প্রায় দেড় বছর পর ওমানের মসজিদে জুমার নামাজ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। আগামী ২৪ সেপ্টেম্বর থেকে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *