ছবি হাতে স্ত্রী ফিরোজাকে খুঁজে ফিরছেন স্বামী জাহিদ

অ’সুস্থ স্বামী কাজ করতে পারেন না। এ কারণে সংসারের হাল ধরতে তিন মাস আগে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে সজীব গ্রুপের হাশেম ফুড অ্যান্ড বেভারেজ লিমিটেডের কারখানায় চাকরি নেন ফিরোজা বেগম। এই কারখানাতেই

বৃহস্পতিবার (৮ জুলাই) ভয়াবহ অ’গ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। অ’গ্নিকাণ্ডের প্রায় ২৩ ঘণ্টা পরও স্ত্রী ফিরোজার সন্ধান পাননি স্বামী মো. জাহিদ।
স্ত্রীর সন্ধান না পেয়ে তার ছবি ও জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজে (ঢামেক) ঘুরছেন জাহিদ। সেখানে তিনি

সাংবাদিকদের স্ত্রীকে খুঁজে না পাওয়ার কথা জানান।
জাহিদ বলেন, ‘আমি আগে গার্মেন্টসে কাজ করতাম। শারীরিক অ’সুস্থতার কারণে ৬ মাস ধরে বেকার। আমি বেকার হয়ে যাওয়ায় তিনমাস আগে ৬ হাজার টাকা বেতনে আমার স্ত্রী এ কারখানায় চাকরি নেয়। ওভারটাইম দিয়ে মাসে আয় ‘হতো ৯

হাজার টাকার মতো।’ তিনি বলেন, ‘আমার স্ত্রীর সঙ্গে শেষ কথা হয়েছে বৃহস্পতিবার সকালে। কারখানার চারতলায় আমার স্ত্রী কাজ করত। বৃহস্পতিবার সকাল ৮টায় দিকে সে অফিসে যায়। এরপর আর ফিরে আসেনি। আমার স্ত্রী এখন কোথায়, কী অবস্থায় আছে কিছুই জানি না। আমা’দের একটা মেয়ে আছে। মেয়ে ওর মায়ের জন্য কান্না করছে। আমি আমার স্ত্রীর খোঁজে এখানে এসেছি।’

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জে সজীব গ্রুপের হাশেম ফুড অ্যান্ড বেভারেজ লিমিটেডের কারখানায় ভয়াবহ আগু’নের ঘটনায় পুড়ে যাওয়া ৪৯টি মরদে’হ ঢাকা মেডিকেলের ম’র্গে নিয়ে আসা হয়েছে।
মরদে’হগু’লো এমনভাবে পুড়ে গেছে যে পরিচয় শনাক্তের জন্য ডিএনএ পরীক্ষা করতে হবে বলে জানিয়েছেন নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত জে’লা প্রশাসক শামীম বেপারী। শুক্রবার (৯ জুলাই) ঢাকা মেডিকেলের ম’র্গে সামনে অবস্থানকালে তিনি বলেন,

‘মৃ’তদে’হগু’লো এমনভাবে পু’ড়ে গেছে যে পরিচয় শনাক্ত জন্য ডিএনএ পরীক্ষা করতে হবে। আমা’দের পক্ষ থেকে স্বজনদের ডিএনএ নমুনা দেয়ার জন্য ঢাকা মেডিকেলের ম’র্গে আসতে বলা হয়েছে।’ তিনি বলেন, ‘নারায়ণগঞ্জে ডিএনএর নমুনা রাখা বা মরদে’হের পরিচয় শনাক্ত কোনো ব্যবস্থা রাখা হয়নি। ফলে এখান (ঢামেক) থেকেই মরদে’হের পরিচয় শনাক্ত করা হবে। স্বজনদের ঢাকা মেডিকেলের ম’র্গে এসে ডিএনএ নমুনা দিতে হবে।’

এর আগে শুক্রবার ‘বিকেল ৩টার দিকে ৫টি অ্যাম্বুলেন্সে করে কারখানার ধ্বং’সস্তুপ থেকে উ’দ্ধার করা মরদে’হগু’লো ঢাকা মেডিকেলের ম’র্গে নিয়ে আসা হয়। প্যাকে’টে ভরা মৃ’তদে’হগু’লো এক এক করে বের করে ম’র্গে হিমঘরে নিয়ে যাওয়া হয়। নারায়ণগঞ্জ জে’লা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সুভাষ চন্দ্র সাহা বলেন, ‘এখন পর্যন্ত ধ্বং’সস্তুপ থেকে ৪৯

জনের মরদে’হ উ’দ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ম’র্গে আনা হয়েছে। আমা’দের প্রথম কাজটি হবে মরদে’হগু’লোর যথাযথ প্রক্রিয়ায় ডিএনএ স্যাম্পল সংগ্রহ করা। সবগু’লো মরদে’হ আগু’নে পু’ড়ে ঝলসে গেছে। প্রয়োজনে তাদের মরদে’হ ফ্রিজিং করা হবে। আত্মীয়দের সঙ্গে ডিএনএ স্যাম্পল মিলিয়ে পরবর্তীতে মরদে’হ হস্তান্তর করা হবে।
এর আগে নারায়ণগঞ্জে ঘটনাস্থলে সাংবাদিকদের ফা’য়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্স নারায়ণগঞ্জ অফিসের উপ-সহকারী পরিচালক আব্দুল্লাহ আল আরেফীন ৪৯ মৃ’তদে’হ উ’দ্ধার তথ্য জানান।

About Gazi Mamun

Check Also

চোখের পানি সম্বল করে খালি হাতে বাড়ি ফিরছেন ভাতাভোগিরা

৯০ বছর বয়সী স্বামীহারা ইঙ্গুল বড়-য়ার দুই ছেলে। ছেলেরা খাবার না দেয়ায় তাকে প্রতিবেশিদের বাড়ি …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *