দা’ফনের প্র’স্তুতিকালে খা’টিয়াসহ ম’রদে’হ থানায় নিয়ে গেলেন পুলিশ!

বগুড়ায় শিশুকে ‘যৌ’ন নি’পীড়’নের অভি’যোগে ম’ধ্যযু’গীয় কায়দায় শা’লিস বৈঠ’কে পৌর কাউন্সিলের মারপিটে আ’ব্দুল মমি’ন (২৫) না’মের এক যুব’কের মৃ’ত্যুর অভি’যোগ উ’ঠেছে। পরে ঘটনাটি ধামাচাপা

দিতে দাফ’নের প্রস্তু’তিকালে পু’লিশ ম’রদে’হ উদ্ধার করেছে। এ’ঘটনা’য় অ’ভি’যুক্ত বগুড়া পৌর’সভা’র ২ নং ওয়া’র্ড কাউ’ন্সিলর তৌ’হিদুল ই’সলাম বি’টুকে পুলিশ আ’টক করে হে’ফাজ’তে নিয়েছে। রবি’বার (২২ আগষ্ট)

বি’কেল সাড়ে ৫টার দিকে বগুড়া শ’হরের ফুলবাড়ি মধ্যপাড়া থেকে পুলিশ ম’রদে’হ উদ্ধার করে। নিহ’ত মমি’ন ফুলবা’ড়ি মধ্য’পাড়ার রেজাউলের ছেলে। তিনি পেশায় হোটেল শ্রমিক ছিলেন। রবিবার সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তিনি মা’রা যান। নিহতের

স্ত্রী ব’র্ষা ও শ্বাশুড়ি জানান, শুক্রবার স্থানীয় এক রিক্সা চালকের শিশু ক’ন্যা’কে ‘যৌ’ন নিপি’ড়’নের অভিযোগ তুলে পৌর কাউন্সিলর তৌহিদুল ইসলাম বিটু মমিনকে ফুলবাড়ি ফাউন্ডেশন নামের একটি ক্লাব ঘরে ডেকে নেয়। সেখানে শালিস বৈঠকের নামে কাঠের বাটাম দিয়ে বেধড়ক পিটানো হয় মমিনকে। পরে মমিনের

বাবাকে ডেকে ছেলেকে তার জিম্মায় ছেড়ে দেয়া হয়। শহরের কলোনী এলাকায় শ্বশুর বাড়িতে স্ত্রী অবস্থান করায় পরদিন শনিবার সন্ধ্যার পর মমিন সেখানে যান। স্ত্রীকে জানান, রিক্সা চালক জুয়েলের ছোট শিশু ক’ন্যাকে সিগারেট আনতে দেয়ার ঘটনা নিয়ে পৌর কাউন্সিলর তৌহিদুল ইসলাম বিটু ক্লাব ঘরে ডেকে নিয়ে তার পিঠে তিনটি কাঠের বাটাম ভেঙ্গেছে।

শিশুকে ‘যৌ’ন নি’পীড়নে’র অভি’যোগ শুনে স্ত্রী ব’র্ষা তার স্বামী’কে গালম’ন্দ করে। শনিবার রাতেই মমিন শ্বশুরবাড়ি থেকে ফুলবাড়িতে তার নিজের বাড়িতে চলে যান। অ’সু’স্থতার খবর পেয়ে মমিনের ভ’গ্নি’পতি জাহিদ রাতে বাড়িতে গিয়ে কথা বলেন। জাহিদ জানান মমিন অসু’স্থ বোধ করলেও কথাবার্তা স্বাভাবিক বলছিলেন। একারনে রাতে তাকে হা’সপাতাল নিয়ে যাওয়া হয়নি। রবিবার স’কালে শ্বা’সক’ষ্টস’হ বিভিন্ন স’ম’স্যা দেখা দিলে

মমি’নকে বগুড়া শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মমিন মা’রা’ যান। পরে পৌর কাউন্সিলর বিষয়টি জানতে পেরে ম’র’দে’হ নিজ উদ্যোগে মমিনের বাড়িতে নিয়ে আসেন এবং তার খরচে দা’ফনে’র প্র’স্তু’তি নেন। বিকেলে ঘটনাটি সদর থানা পুলিশ জানতে পেরে ম’রদে’হ উ’দ্ধা’র করে নিয়ে আসেন।

এসময় পৌর কাউন্সিলর তৌহিদুল ইসলাম বিটুকে থা’না’য় নিয়ে এসে পু’লিশ হে’ফাজ’তে রাখা হয়। বগুড়া সদর থানার পুলিশ পরিদর্শক ( তদন্ত) আবুল কালাম আজাদ বলেন, মযনা তদন্ত রিপোর্ট না পাওয়া পর্যন্ত মৃ’ত্যু’র কারন নিশ্চিত করে বলা যাবে না। কাউন্সিলরের বিরুদ্ধে মা’রধ’রের অ’ভিযোগ উঠে’ছে, একা’রনে তাকে পু’লিশ হে’ফাজ’তে নেয়া হয়েছে।

About Gazi Mamun

Check Also

মসজিদের ছাদ থেকে সিনহা হত্যাকাণ্ড দেখেন শহীদুল

অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলায় সাক্ষ্য দিয়েছেন ঘটনাস্থলের নিকটবর্তী বায়তুল নূর জামে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *