পরীমণিকে নিয়ে ইসলামী বক্তার স্ট্যাটাস, মুহূর্তেই ভাইরাল সেই স্ট্যাটাস

ঢাকাই সিনেমার আলোচিত নায়িকা পরীমণির কারাফটকে প্রদর্শিত মুক্তির উল্লাসের আলোচনা-সমালোচনায় সরগরম হয়ে উঠেছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। এ নিয়ে বিশিষ্ট ইসলামী বক্তা গাজীপুর মহানগরের

বোর্ড বাজার কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আব্দুর রহীম আল-মাদানীর ভেরিফাইড ফেসবুক পেজে বুধবার বিকেলে পরীমণিকে নিয়ে এক স্ট্যাটাসে তোলপাড় শুরু হয়েছে। এ ছাড়া পরীমণির জা’মিন, কারাফটকে মুক্তির উল্লাস ও সেখানে এক

ধরণের মহড়ায় বীরদর্পে জে’ল থেকে বের হওয়া নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনার ঝড় বইছে। পাঠকদের জন্য মাওলানা আব্দুর রহীম আল-মাদানীর স্ট্যাটাসটি হুবহু তুলে ধরা হলো- ‘অসংখ্য অ’পকর্মের হোতা, মা’দক

মা’মলার ঘৃণিত আসামী জা’মিনে মুক্তি পেয়ে দাঁত কেলিয়ে হাসা। এটা নির্লজ্জতার কত নম্বর স্তর???’ এর আগে বুধবার সকাল সাড়ে ৯টায় পরীমণি কাশিমপুর কেন্দ্রীয় কা’রাগার থেকে জা’মিনে মুক্তি পান। এ সময় মাওলানা আব্দুর রহীম আল-মাদানীর

এ স্ট্যাটাসে জনৈক জিলানী সোহান মন্তব্য করেন, ‘একটা জিনিস বুঝলাম না, বাংলাদেশের জে’লখানায় কি মেহেদি দেয়ার সু-ব্যবস্থা আছে নাকি, পরীমনি কি জে’লখানা থেকে বের হইছে, নাকি অলিম্পিক থেকে স্বর্ণ পদক নিয়ে বাংলাদেশে আসছে।’

আবুল মনসুর ইমন মন্তব্য করেন, ‘মানুষের চরিত্র ধ্বং’সের কারিগর মুক্তি পায়। আর মানুষের চরিত্র গঠনের কারিগর ব’ন্দী থেকে যায়।’ মো: জাকারিয়া বিন তাহের মন্তব্য করেন, ‘জে’লের মধ্যে আবার মেহেদী লাগাইয়া দিলো

কে? আলেমরা জে’ল থেকে বাইরে আসলে প’ঙ্গু হয়ে আসে, আর পরি তো হাসতে হাসতে হাতে মেহদী লাগিয়ে রঙ্গ তামশা করে আসছে , আসলে আইন কার?’

About Gazi Mamun

Check Also

হেঁটে হেঁটে জুম্মার নামাজের যাওয়ার ফজিলত

জুম্মাকে বলা হয় মুসলমানদের সাপ্তাহিক ঈদের দিন। প্রত্যেক মুসলমানের জন্য জুমার দিন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। মুসল্লিদের …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *