Home / খেলা-ধুলা / ‘আমাদের অবস্থা হবে জিম্বাবুয়ের মতো’ বাংলাদেশের

‘আমাদের অবস্থা হবে জিম্বাবুয়ের মতো’ বাংলাদেশের

ছিলেন বিকেএসপির সিনিয়র কোচ। বিসিবির অফারকে গুরুত্ব দিয়ে নাইমুর রহমান, আবদুর রাজ্জাক রাজদের আবিষ্কারক সারোয়ার ইমরান বিসিবিতে তিন দফায় ১৬ বছর কোচের দায়িত্ব পালন করেছেন।

এক সময়ে বিসিবির পেসার হান্ট কর্মসূচি আবর্তিত হয়েছে তাকে ঘিরেই।টেস্ট ক্রিকেটে ভালো করতে হলে প্রয়োজন সঠিক ক্রিকেট কাঠামো। আর তার জন্য আঞ্চলিক ক্রিকেট সংস্থাগুলোকে সক্রিয় করার কোনো বিকল্প নেই বলে মনে করেন বাংলাদেশের প্রথম টেস্টের কোচ সারওয়ার ইমরান।

পাশাপাশি, সম্ভব হলে, জাতীয় লিগের ম্যাচে মানসম্পন্ন বিদেশি ক্রিকেটার অন্তর্ভুক্তির দিকেও মনোযোগ দেয়া যেতে পারে বলে মত তার। একই সঙ্গে ঘরোয়া ক্রিকেটে আম্পায়ারিংয়ের মান বৃদ্ধিতে নজরদারি বাড়ানোর আহ্বান টাইগারদের সাবেক এ গুরুর।

গণমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, আমরা তিন দিনেও ম্যাচ বাঁচাতে পারি না! এভাবে চলতে থাকলে আমাদের অবস্থা হবে জিম্বাবুয়ের মতো। এটা (পাকিস্তানের বিপক্ষে আড়াই দিন খেলেও ইনিংস হার) আসলে অনেক দিনের ফল। প্রিমিয়ার লিগ,

জাতীয় লিগ বলুন—জৌলুশ নষ্ট হয়ে গেছে। এ জন্য দায়ী বিতর্কিত আম্পায়ারিং। আগে ঢাকার লিগগুলোয় অনেক খেলোয়াড় খেলত। পাঁচ হাজার টাকা দিয়ে এন্ট্রি ফি দিয়ে যে কেউ খেলকে পারত। এখন সেই ব্যবস্থা নেই। অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ডে ক্রিকেটে আগ্রহী

দলের জন্য অনেক কাজ করে, খরচ করে। আমাদের এই সমস্যা নেই। আমাদের লাখ লাখ ক্রিকেটার। আমাদের দ্বিতীয় ও তৃতীয় শ্রেণির ক্রিকেট খেলাগুলো পাপমুক্ত, দোষমুক্ত রাখা উচিত ছিল। কিন্ত আমরা সব নষ্ট করে ফেলেছি। আপনি যখন একটা দল

গঠন করবেন, তখন চেইনটা শক্তিশালী হতে হবে। আমাদের চেইন পুরোপুরি ছিঁড়ে গেছে! রাসেল ডমিঙ্গো প্রধান কোচ হিসেবে কাজ করছে দলে। তার ওপর আবার একজন টিম ডিরেক্টর রাখা হয়েছে। এই জিনিসগুলো ঠিকভাবে হয়নি। সবকিছুতেই মিডিয়াতে একজন কোচকে যেভাবে পচানো হচ্ছে, সেটাও ঠিক নয়।

আমি জানি না সে বা অন্যরা কতটুকু দোষী। আমার মনে হয় না এভাবে কাউকে পচালে সেটা দলের জন্য ভালো হবে। এই চেইন জোড়া লাগাতে মোটামুটি সময় লাগবে। এভাবে চলতে থাকলে অদূর ভবিষ্যতে আমরা আরও বাজে অবস্থায় চলে যাব। গত কয়েক বছরে যা অর্জন করেছি, সেটা ম্লান হয়ে যাবে।

এখন সাকিব ছুটিতে গেল, মাহমুদউল্লাহ অবসর নিয়েছে (টেস্ট থেকে), তামিম খেলছে না, মাশরাফি নেই। তখন সবাই বলেছিল, আমাদের পাইপলাইন অনেক শক্তিশালী। আমরা বৃষ্টির মৌসুমে এসে একটা হাইপারফরম্যান্স (এইচপি) প্রোগ্রাম করি। এইচপি দল কোথাও যায় না; নিজেরা নিজেরা খেলে। এভাবে আমরা টুর্নামেন্ট খেলি যেটা বিসিবি নির্ধারণ করে দেয়। আগে আমাদের

ক্রিকেটাররা আবাহনী-মোহামেডানে চাপের মধ্যে খেলত। এখন খেলোয়াড়েরা চাপ নিতে পারে না কেন? পেসারদের কথা যদি বলি, ১০-১৫ বছর আগের চেয়েও এখন আমাদের পেস বোলিং অনেক খারাপ জায়গায় আছে। এখান থেকে বের হওয়ার উপায় হচ্ছে ভালো এবং মানসম্মত কোচ নিয়োগ দেওয়া। যারা বয়সভিত্তিক থেকে খেলোয়াড় তৈরিতে কাজ করবে।

এভাবে ধাপে ধাপে যেতে হবে। শীর্ষ পর্যায়ে কোচিং অনেক কঠিন। খেলোয়াড় তৈরি করাটাও কঠিন। আমাদের অনেক কিছুতেই সমস্যা আছে। ক্রিকেট বোর্ডের একটা আলাদা কোচিং বিভাগ করা উচিত। আমাদের গেম এডুকেশন ডিপার্টমেন্ট বন্ধ আছে। এটা চালু করতে হবে। ঘরোয়া ক্রিকেটের মান বাড়াতে হবে। আম্পায়ারিংয়ের মান

বাড়াতে হবে। ঘরোয়া ক্রিকেটের উইকেট ঠিক করতে হবে। আমরা অনেক সময় একাদশে দুজন পেস বোলারও খেলাই না। এর কারণ, উইকেট। আমাদের দেশে ভালো উইকেট হবে না, এই অজুহাত দেওয়া যাবে না।

About Gazi

Check Also

অবশেষে হেইডেনকে কোরআন উপহার দেয়ার কারণ জানালেন রিজওয়ান

টি-টোয়েন্টিতে ডানহাতি ব্যাটসম্যান রিজওয়ানের অভিষেক হয় বাংলাদেশের বিপক্ষে, ২০১৫ সালে। খাইবার পাখতুনখাওয়া থেকে উঠে আসা …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *