Home / জানা-অজানা / পানি শুকনোর পর মাটি থেকে বের হচ্ছে কই মাছের ঝাক , মাটি থেকে মাছ বের হবার ভিডিওটি তুমুল ভাই’রাল

পানি শুকনোর পর মাটি থেকে বের হচ্ছে কই মাছের ঝাক , মাটি থেকে মাছ বের হবার ভিডিওটি তুমুল ভাই’রাল

মাছ পানিতে থাকে শুনেছেন অ’তবা কাদা মাটিতে থাকে সেটাও মেনে নেওয়া যায় কিন্তু মাছ মাটির ভিতরে থাকে তাও আবার কাঠফাটা রোদের শুকনো মাটির নিচে কিভাবে বেচে থাকে এরা ।
মাছ সারা দুনিয়ার

মানুষের কাছে একটি প্রিয় খাদ্য । অনেক মানুষের কাছে মাছ হলে আর কিছু দরকার নাই এই মাছের জন্য ঘুরে বেরায় দেশ বিদেশ অনেকেই । এই মাছ আমাদের পর্যাপ্ত আমিষ যোগান দিয়ে থাকে আমাদের শরীরের প্রায় ৮০ ভাগ আমিষ আসে সেই মাছ

থেকেই মাছ অনেক প্রজাতির আছে ছোট মাছ বড় মাছ তা সব পানিতে বসবাস করলেও কিছু কিছু দেশীয় মাছ আছে যেগুলা শুধু পানিতে নয় পানি শুকিয়ে গেলেও এরা মাটির নিচে থাকতে পারে অনায়াসে কয়েক মাস কোনোরকম পানি খাবার ছারাই । আর এমন কিছু মাছ আমাদের দেশেই দেখা যায়

যেমন কই মাছ,মাগুর মাছ ,শিং মাছ ইত্যাদি এমন প্রজাতির মাছ গুলা মাটির নিচে থাকতে পারে । পুকুর নদী নালা খাল বিলের পানি যখন শুকিয়ে যায় তখন এরা এদের নিজেরা অনুভব করে এবং আস্তে আস্তে পানি শুকানোর আগে মাটির কয়েক ইঞ্চি নিচে নিজেরা থাকার জায়গা করে নেয় যেখানে শুধু বাতাস প্রবেশ করে এমন ভাবে মাটির নিচে থাকার ব্যাবস্থা করে ।আর যখনি পানি

এসে পরিপূর্ণ হয়ে যায় তখন এই প্রজাতির মাছ গুলা মাটির নিচে থেকে বের হয়ে আসে এবং বংশ বিস্তার শুরু করে থাকে ।
সম্প্রতি একটি ভিডিও নেট দুনিয়ায় তুমুল ভাই’রাল হয়েছে যেখানে দেখা গেছে কিছু মাছ শিকারি সেখানকার স্থানীয় কিছু জায়গায় যেখানে পানি ছিলো কিন্তু এখন পানি নেই রোদে মাটি শুকিয়ে ফেটে গেছে আর সেখানে তারা ডিম আর ডালিমের বিচি

দেয় এবং সেইসব খাবারের গন্ধ পেয়ে বের হতে থাকে অসংখ্য কই মাছ কই মাছের একটা শক্তি হলো এরা সহ’জে কখনো ম’রেনা আর এরা শুকনো যায়গায় চলাচল করতে পারে । বৃষ্টির সিজনে গ্রামের মানুষেরা এমন কই মাছ ধরে থাকে শুকনো থেকে বাড়ির উঠানের পাশে পুকুর থাকলে বাড়িতেও কই মাছ উঠে আসে

ভিডিও দেখুন এখানে ক্লিক করুন

About Gazi

Check Also

দেখা মিললো সৌন্দর্যে মুগ্ধ করা বিরল প্রজাতির এক বাদুড়

নিশাচর প্রা’ণীদের মধ্যে প্রথম সারিতেই রয়েছে বাদুড়। বাদুড় স্তন্যপায়ী প্রা’ণী হলেও পাখার সাহায্যে আকাশে উড়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *