Home / আন্তর্জাতিক / আসল সূর্যের পাঁচ গুণ বেশি তাপ দিবে চীনের তৈরি ‘কৃত্রিম সূর্য’:বলেছেন চীনা বিজ্ঞানীরা

আসল সূর্যের পাঁচ গুণ বেশি তাপ দিবে চীনের তৈরি ‘কৃত্রিম সূর্য’:বলেছেন চীনা বিজ্ঞানীরা

চীনের বিজ্ঞানীরা গবেষণাগারে ‘কৃত্রিম সূর্য’ তৈরি করেছেন। গত বছরগুলোতে এমন খবর আমরা পেয়েছি। তবে নতুন খবর হলো, সা’ম্প্রতিক পরীক্ষণে চীনের ওই কৃত্রিম সূর্য ৭ কোটি ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপ উৎপন্ন

করে, যা আসল সূর্যের পাঁচ গুণের কাছাকাছি। তার চেয়েও বড় কথা, এই তাপ প্রায় ১৮ মিনিট পর্যন্ত ধরে রাখতে সফল হয়েছেন তারা। বিজ্ঞানীরা আশা ব্যক্ত করছেন, এতে নিউক্লিয়ার ফিউশন বা কেন্দ্রকীয় সংযোজন প্র’ক্রিয়া কাজে লাগিয়ে পরিবেশবান্ধব বিপুল

শক্তি উৎপন্ন করা সম্ভব হবে। অন্তত সে পথে এক ধাপ এগিয়ে নেবে। নিউক্লীয় বিক্রিয়ায় একাধিক হালকা নিউক্লিয়াই সংযোজিত হয়ে তুলনামূলক ভারি নিউক্লিয়াস গঠিত হয়। পাশাপাশি এ প্রক্রিয়ায় সৃষ্টি হয় বিপুল শক্তি। মূলত সূর্যের নিউক্লিয়ার ফিউশনের

প্রক্রিয়া অ’নুকরণ করছেন ওই বিজ্ঞানীরা। চীনের শিনহুয়া নিউজ এজেন্সির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চীনের আনহুই প্রদেশের হফেই শহরের ‘এক্সপেরিমেন্টাল অ্যা’ডভান্সড সুপারকন্ডাক্টিং টকামাক (ইএএসটি)’ নামের নিউক্লীয় ফিউশন চুল্লিতে পরীক্ষা-

নিরীক্ষায় ব্যস্ত গবেষকেরা। হফেই ইনস্টিটিউট অব ফিজিক্যাল সায়েন্সের অংশ এটি। এখন চুল্লিটিকে আরও শক্তপোক্ত, আরও তাপসহনীয় করার চেষ্টা করছেন তারা। এ ধরনের গ’বেষণাগারকে কৃত্রিম সূর্য বলার কারণ সেখানে মূল সূর্যের নিউক্লীয় ফিউশনের

প্রক্রিয়া অনুকরণ করা হয়। অর্থাৎ সূর্যের শক্তি উৎপন্নের প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হচ্ছে। এমন বিক্রিয়ায় জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা হয় হাইড্রোজেন ও ডিউটেরিয়াম গ্যাস। এর মূল লক্ষ্য বলা যায় মানুষের ক্রমবর্ধমান জ্বালানি চাহিদার পরিবেশবান্ধব উৎস তৈরি।

সমুদ্রের এক লিটার পানি থেকে যে পরিমাণ ডিউটেরিয়াম গ্যাস পাওয়া যাবে, তা থেকে নিউক্লিয়ার ফিউশনের মাধ্যমে পাওয়া শক্তি ৩০০ লিটার গ্যাসোলিন পুড়িয়ে পাওয়া শক্তির প্রায় সমান। সাউথ চায়না মর্নিং পোস্টের প্রতিবেদন অনুযায়ী, গবেষকেরা ‘কৃত্রিম

সূর্য’ ৭ কোটি ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপে ১৭ মিনিট ৩৬ সেকেন্ড পর্যন্ত পরিচালনা করেন। অথচ মূল সূর্যের কেন্দ্র দেড় কোটি ডিগ্রি সেলসিয়াসের মতো তাপ উত্তপ্ত হতে পারে। ইএএসটি গবেষণাগারটি চীনাদের তৈরি হলেও ২০০৬ সাল থেকে বিশ্বের নানা দেশের

বিজ্ঞানীরা সেখানে গবেষণা করেন। ১০ হাজারের বেশি চীনা এবং বিদেশি বিজ্ঞানীদের কাজের ফল এই কৃত্রিম সূর্য। এ প্রকল্পে চীন এরইমধ্যে ৭০ কোটি ১০ লাখ ব্রিটিশ পাউন্ড খরচ করেছে বলে জানিয়েছে ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড দ্য সান। গত ডিসেম্বরের শুরুতে শুরু হওয়া পরীক্ষণটি চলবে আগামী জুন পর্যন্ত।

About Gazi

Check Also

“সাড়ে ৩০ ঘণ্টা উড়ে তুরস্কের ‘ড্রোনের’ নতুন রেকর্ড!

তুরস্কের তৈরি মানববিহীন আঙ্কা-এস ই’উ’কে’ভ ড্রোন সবচেয়ে বেশি সময় আকাশে ওড়ার নতুন রেকর্ড গড়েছে। নতুন …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *